ধর্ষণ বাংলাদেশের অন্যতম একটি সামাজিক সমস্যা। প্রায় ই আমরা দেখতে পায় আজ এখানে ধর্ষণ তো কাল ওখানে ধর্ষণ। এবারেও এমন চিত্র দেখা গেল কুড়িগ্রামে।কুড়িগ্রামের উলিপুরে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগে আব্দুস সবুর (৩০) নামে এক প্রাইভেট শিক্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) বিকেলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক অম্লান কুসুম জিষ্ণু এ আদেশ দেন।আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. আব্দুর রাজ্জাক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।দণ্ডপ্রাপ্ত আব্দুস সবুর উপজেলার পান্ডুল ইউনিয়নের উত্তর পান্ডুল গ্রামের আ. নুরের ছেলে।মামলা সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে, আব্দুস সবুর পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রী‌কে বা‌ড়ি‌তে প্রাই‌ভেট পড়া‌তেন। ২০১৩ সা‌লের ১৯ মে রা‌তে আব্দুর সবুর পরিকল্পিতভাবে ওই ছাত্রী‌কে বে‌শি সময় ধরে পড়া‌নোর বাহানায় আটকে রাখেন। এরপর রাত ৯টার দি‌কে ওই ছাত্রী‌কে বা‌ড়ি‌তে পৌঁ‌ছে দেওয়ার কথা ব‌লে এক‌টি বাঁশ ঝা‌ড়ের আড়া‌লে নি‌য়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ ক‌রেন। এরপর এ ঘটনা প্রকাশ কর‌লে ওই ছাত্রী‌কে প্রাণনা‌শের হুমকি দি‌য়ে বা‌ড়ি‌তে পৌঁ‌ছে দেন।

এ অবস্থায় রা‌তে ওই ছাত্রী ভয়ে তার বাড়ির কাউকে কিছু না বল‌লেও প‌রের দিন সকা‌লে অসুস্থ হ‌য়ে প‌ড়ে। অসুস্থতার কারণ জানতে জিজ্ঞাসাবা‌দের সময় ওই শিক্ষার্থী ঘটনাটি প্রকাশ করে।পরদিন ২০ মে তারিখে চিকিৎসার জন্য তাকে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ২১ মে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে আব্দুস সবুরকে আসামি করে উলিপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।দীর্ঘ ৮ বছর ধরে মামলার বিচার কাজ চলে। সাক্ষ্য-প্রমাণে আব্দুস সবুরের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক ওই ধর্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন।রাষ্ট্রপ‌ক্ষে মামলা পরিচালনা করেন স্পেশাল পাব‌লিক প্রসি‌কিউটর আব্দুর রাজ্জাক এবং আসা‌মি প‌ক্ষে ছিলে অ্যাডভোকেট এ‌টিএম এনামুল হক চৌধুরী চাঁদ।